সবসময় মোটা সোনার চেন কেন পড়ে থাকতেন বাপ্পি লাহিড়ি? কারণ জানলে অবাক হবেন


গতকাল মধ্যরাতে আমাদের সকলকে ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন বাপ্পি লাহিড়ি। বলিউডের পাশাপাশি টলিউডেও সমান তালে কাজ করেছেন সুরকার এবং গায়ক বাপ্পি লাহিড়ি। ৮০, ৯০ এর দশকে তিনি একের পর এক হিট গান উপহার দিয়েছেন দেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে। ভারতীয় সিনেমায় ডিস্কো মিউজিকের আগমন তাঁর হাত ধরেই।

- Advertisement -

তবে বাপ্পি লাহিড়িকে নিয়ে কথা বলতে গেলে প্রথমেই যে প্রসঙ্গ উঠে আসে তা হল সোনা। গলায় একাধিক মোটা মোটা সোনার চেন পড়ে থাকতেন তিনি। বাপ্পি লাহিড়ির সোনাপ্রীতি সর্বজনবিদিত। কিন্তু কেন এত সোনার চেন পড়তেন তিনি? এর উত্তর একটি সাক্ষাৎকারে নিজেই দিয়েছিলেন।

বাপ্পি লাহিড়ি জানিয়েছিলেন তিনি বিখ্যাত গায়ক এলভিশ প্রিসলীর ফ্যান ছিলেন। একবার এলভিশকে গলায় মোটা সোনার চেন পড়ে গাইতে দেখেছিলেন এবং তখনই মনে মনে ঠিক করে নিয়েছিলেন তিনিও যখন জনপ্রিয় হবেন তখন গলায় মোটা সোনার চেন পড়ে থাকবেন। কত সোনা ছিল বাপ্পি লাহিড়ির কাছে? এই প্রশ্নও মাঝেমাঝে উঁকি দেয় তাঁর ভক্তদের মনে। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটে বিজেপির হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। তখন তিনি যে হিসেব দিয়েছিলেন সেই হিসেব মতে তাঁর মোট সোনার পরিমাণ ছিল ৭৫৪ গ্রাম এবং রূপো ছিল ৪.৬২ কেজি। সুরকারের স্ত্রী চিত্রানির কাছে ছিল ৯৬৭ গ্রাম সোনা, ৮.৯ কেজি রূপো এবং ৪ লক্ষ টাকার হীরে। বাপ্পি লাহিড়ির মোট সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ২০ কোটি টাকা।

জীবনের শেষ কাজ তিনি করেছিলেন ‘বাগি-৩’ ছবিতে। ‘বিগবস-১৫’ এর সেটে শেষবারের জন্য ক্যামেরার সামনে এসেছিলেন তিনি। অসুস্থ ছিলেন বহুদিন ধরেই। গত সোমবার হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি গেছিলেন তারপর আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং মঙ্গলবার সকালে ভর্তি হন হাসপাতালে আর তারপরেই মুম্বাইয়ের সিটিকেয়ার হাসপাতালে ৬৯ বছর বয়সে মৃত্যু হয় বাপ্পি লাহিড়ির।

আরোও পড়ুন :