বলতে চেয়েছিলেন ‘বেটি পড়াও’,মুখ ফসকে হয়ে গেল ‘বেটি পটাও’,নেটদুনিয়ায় ট্রোল নেটিজেনদের

নরেন্দ্র মোদি
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘বেটি পটাও’ এই একটা শব্দের সামান্য গন্ডগোলেই একেবারে হুলুসতুলুস কাণ্ড হয়ে গেলো সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে শুরু হয়ে গেল একের পর এক ট্রোল এবং মিম তৈরী। আসলে গন্ডগোলটি করেছেন খোদ দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও…’ স্লোগান বলতে গিয়ে মুখ ফসকে বলে ফেলেন ‘বেটি পটাও’। ব্যস, এতেই রীতিমতো সোশ্যাল মিডিয়ার ট্রেন্ডিং শীর্ষে উঠে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

- Advertisement -

সূত্রের খবর বৃহস্পতিবার ব্রহ্ম কুমারী আয়োজিত ‘আজাদি কি অমৃত মহোৎসব সে স্বর্ণিম ভারত কি ওউর’ কর্মসূচির এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এবং সেখানেই ‘বেটি পড়াও’ বলতে গিয়ে মুখ ফস্কে যা বলেছেন তা শুনে অনেকেরই মত, যে তিনি মনে হয় ভুল করে‘বেটি পটাও’ বলে ফেলেছেন। আর এরপর থেকে প্রধানমন্ত্রীর ওই মন্তব্যকে ঘিরে সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো শুরু হয়ে যায় কটাক্ষ ও নানান ধরনের ট্রোল এবং মিমের বন্যা।

প্রধানমন্ত্রীর ওই একটি উচ্চারণ ভুলের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন মিম গুলি থেকে দেখা গিয়েছে, সেখানে কেউ লিখেছেন, ‘বেটি বচাও, বেটি পটাও এখন বিজেপি-র স্লোগান। ওই দলটির থেকে এর চেয়ে বেশি কিছু আশা করি না।’ আর এক জন ওই বক্তব্যের সঙ্গে রাহুল গাঁধীর একটি ছবি জুড়ে দিয়ে লিখেছেন, ‘আমার জন্য পাত্রী দেখুন।’ কেউ আবার তুলে ধরেছেন বাংলায় নির্বাচনে মোদীর প্রচারে ‘দিদি, ও দিদি’ প্রসঙ্গটি। এবং লিখেছেন, ‘যিনি মঞ্চ থেকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে ওই ভাবে টিটকারি মারতেন, তিনি তাঁর দলের অন্যদের এই পরামর্শই দেবেন।’ সব মিলিয়ে এটুকু বোঝা যাচ্ছে, যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এই সামান্য ভুল থেকেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে চারিদিকে হাঁসির আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

আরোও পড়ুন :