দূর্ঘটনার ভয়াবহ অভিজ্ঞতা জানালেন বিকানের এক্সপ্রেসের চালক প্রদীপ কুমার

1633
- Advertisement -

বিকানের এক্সপ্রেস
বিকানের এক্সপ্রেস দূর্ঘটনার পর কেটে গেছে ২৪ ঘন্টা।সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, এই দূর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের।আহত সংখ্যা অনেক।তবে ঠিক কি হয়েছিল দূর্ঘনার মুহুর্তে, সেই অভিজ্ঞতাই এবার জানালেন দূর্ঘটনাগ্রস্ত বিকানের-গুয়াহাটি এক্সপেসের চালক প্রদীপ কুমার।

- Advertisement -

দূর্ঘটনা ঘটার দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টা ৩০ মিনিট নাগাদ তিনি কাজে যোগ দিয়েছিলেন।বিকাল ৫ টা নাগাদ ময়নাগুড়িতে ঘটে এই দূর্ঘটনা।মৃত্যু ও আহতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।দূর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর অনেক সময় কেটে গেলেও এখনও সেখানে রয়েছেন প্রদীপ কুমার।তদন্তকারীদের সাথে দফায় দফায় কথা বলছেন তিনি।তার অভিজ্ঞতাও জানিয়েছেন তিনি।তিনি জানান,“গাড়ি ৯৫ থেকে ১০০ কিলোমিটার স্পিডে ছিল। দোমোহনি ষ্টেশনে সবুজ সংকেত দেখেই ট্রেনটি চালাই। হঠাৎ অ্যাডভান্স সিগন্যালের আগে ঝাঁকুনি অনুভব করি। সঙ্গে সঙ্গে ব্রেক কষি। তখনই দেখি পিছনে বগি উলটে গিয়েছে। কীভাবে হল বুঝতেই পারলাম না। রেল ট্র‍্যাকের সমস্যার জন্যই এমন হয়েছে বলে মনে হচ্ছ আমার।” দূর্ঘটনার আতঙ্ক এখনও তার চোখে মুখে প্রকাশ পাচ্ছে।

উল্লেখ্য,বৃহস্পতিবার বিকেলে এই দূর্ঘটনা ঘটার পর থেকেই দ্রুত গতিতে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় উদ্ধারকার্য শুরু হয়ে যায়।প্রশাসন থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্বেচ্চাসেবী সংস্থা,রাজনৈতিক দল নির্বিশেশে সকলে একসাথে উদ্ধারকাজে ঝাঁপিয়ে পড়ে।ওই লাইন দিয়ে এখনও ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে বলেই খবর।এখনও চলছে কাজ।ধারনা করা হচ্ছে ওই লাইনে ট্রেন চলাচলের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে বেশ কিছুটা সময় লাগবে।

আরোও পড়ুন :