গরুর দুধে সোনা না খুঁজে যুব সমাজের উন্নয়ন করাই গুরুত্বপূর্ণ,দিলীপ কে খোঁচা হিরণের

21
- Advertisement -

 হিরণ চট্টোপাধ্যায়
সাল তখন ২০২১৯।গরুর দুধে যে সোনা আছে তার খোঁজ দিয়েছিলেন তৎকালিন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।তবে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি হওয়ার পরও এই সোনার তত্ব নিয়ে আজও নিয়মিত খোঁচা খেয়ে যান দিলীপ ঘোষ।বিরোধী দলের নেতা,নেত্রী থেকে শুরু করে কর্মীরা এই সোনা তত্ত্ব নিয়ে মাঝে মধ্যেই খোঁচা দিয়ে যান দিলীপ ঘোষ কে, এবার তার দলের বিধায়ক ও একই ভাবে খোঁচা দিলেন তাকে।

- Advertisement -

শনিবার সংবাদমাধ্যম কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজের কাজের বর্ননা দিতে গিয়ে খড়গপুরের বিজেপি বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায় বললেন,“গরুর দুধে সোনা আছে কি না তা নিয়ে গবেষণার আগে যুব সমাজের কী করে উন্নয়ন হবে, তাঁরা কী করে কাজ পাবেন সেটা নিয়ে গবেষণা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ।”

দিলীপ ঘোষ ও হিরণ চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যে আদায় কাঁচকলায় সম্পর্কের কথা অনেকেই জানেন।অনেকদিন আগে থেকেই এই সংঘাতের শুরু।দিলীপের লোকসভার মধ্যেই পড়ে হিরণের বিধানসভা কেন্দ্র।সেই সুত্রেই সম্প্রতি খড়গপুরে নির্বাচনী প্রস্তুতি সভা করেন দিলীপ ঘোষ,সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন না হিরণ।এরপর পর কয়েকটি বিজেপির হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে বেড়িয়ে যান হিরণ।গ্রুপ ছাড়ার প্রসঙ্গে হিরণ জানান,“আমি অনেক গ্রুপে রয়েছি। ওই গ্রুপগুলিতে আমার থাকার দরকার নেই মনে করেই ছেড়েছি। দল বললে আবার ঢুকে যাব।”

সংবাদমাধ্যমের পক্ষ থেকে হিরণের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেওয়া হয়, দিলীপ ঘোষের সাথে কি তার বনিবনা হচ্ছে না? উত্তরে হিরণ জানান, “দিলীপবাবু তো আমাদের সাংসদ। দল বললে উনি কর্মসূচি করবেনই। কিন্তু রাজ্য সভাপতি থেকে নেতৃত্বের সকলকে বলেছিলাম, আমার এলাকায় কোনও কর্মসূচি থাকলে আমায় যেন আগে জানানো হয়।”

বছর তিনেক আগে ২০১৯ সালে বর্ধমানের টাউন হলে এক সভা থেকে দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন,‘‘গরুর দুধে সোনার ভাগ থাকে। তাই দুধের রং হলুদ হয়।’’এরপর ২০২২ সালে সেই কথাই টেনে হিরণ যেন বুঝিয়ে দিতে চাইলেন তার আর দিলীপ ঘোষের মধ্যে অনেকটাই পার্থক্য।

আরোও পড়ুন :