মা দূর্গার পুজোয় ১০৮টা পদ্মফুল দেওয়ার কারন জেনে নিন

150
- Advertisement -

দূর্গাপূজো
দূর্গাপূজোর সাথে জড়িয়ে আছে একাধিক নিয়মকানুন।শাস্ত্রে বলা হয়েছে,এই নিয়মকানুন গুলি মেনে মাতৃশক্তির আরাধনা করলে মায়ের আশির্বাদে আশানুরূপ ফল পাওয়া যায়।দূর্গাপূজোর সময় এরকমই একটি আবশ্যিক নিয়ম হলো ১০৮ টি পদ্ম দিয়ে সন্ধি পূজা।কিন্তু কি কারনে দেবী দূর্গার পূজোয় ১০৮ টি পদ্মের প্রয়োজন পড়ে জানেন কি?

- Advertisement -

দূর্গাপূজোতে ১০৮ টি পদ্মের আবশ্যিকতা জানতে গেলে আমাদের ফিরে যেতে হবে রামায়নের যুগে।রামায়নে উল্লেখ রয়েছে রাম রাবনের যুদ্ধের সময় রাবন এর বিরুদ্ধে জয় লাভ করার জন্য শ্রীরামচন্দ্র দেবী দূর্গার পূজো করেন।আগে দূর্গাপূজা হতো বসন্তকালে, তাই দেবী দূর্গা কে বাসন্তিও বলা হয়।কিন্তু রাম রাবনের যুদ্ধের আগে সেই সময় ছিল শরৎকাল। রামচন্দ্র দেবী দূর্গার অকাল বোধন করেন।বর্তমানে এই অকাল বোধন ই শারদীয়া দূর্গোৎসব হিসাবে পরিচিত।

রামায়ন অনুসারে,দেবী দূর্গার পূজো করার জন্য শ্রীরাম কে বিভীষন পরামর্শ দেন ১০৮ টি নীল পদ্ম দিয়ে পূজো সম্পন্ন করার।সেই মতো রাম পদ্ম সংগ্রহের জন্য হনুমান কে নির্দেশ দেন।রামের নির্দেশ পাওয়া মাত্র হনুমান দেবীদহে পদ্ম সংগ্রহ করতে যান,কিন্তু সেখানে গিয়ে ১০৮ টি পদ্মের বদলে ১০৭ টি পদ্ম পান হনুমান।বাকি থাকে ১ টি পদ্ম। এই ১০৮ নম্বর পদ্মটিও নিয়ে একটি কাহিনি রয়েছে।কথিত রয়েছে,ওই পদ্ম টি লুকিয়ে রেখেছিলেন স্বয়ং দেবী। কারন,ওই পদ্ম টি ছিল দেবাদিদেব মহাদেবের অশ্রু। পুরান অনুসারে দীর্ঘদিন ধরে অসুর নিধন করতে করতে দেবী দূর্গার দেহে ১০৮ টি ক্ষত সৃষ্টি হয়েছিল।

দেবীর দেহে এই ক্ষত দেখে মহাদেব কাতর হয়ে পড়েন।ক্ষতস্থানের জ্বালা থেকে মুক্তির জন্য দেবীদহে দেবীকে স্নান করতে বলেন তিনি।এরপর দেবাদিদেবের কথা মতো দেবী দেবী দহে স্নান করলে তার ১০৭ টি ক্ষতস্থান থেকে সৃষ্টি হয় ১০৭ টি পদ্মের।দেবীর এই অসহ্য জ্বালা সহ্য করতে না পেরে দেবাদিদেবের চোখ থেকে একফোঁটা অশ্রু পড়ে দেবীর ১০৮ তম ক্ষতে। এবং সেখান থেকে সৃষ্টি হয় ১০৮ নম্বর পদ্মের।

স্বামীর অশ্রু থেকে সৃষ্ট পদ্ম দেবী কিভাবে নিজের চরনে নেবেন এই ভেবেই দেবী সেটিকে হরন করেন।হনুমান যখন পদ্ম নিয়ে রামের কাছে ফিরে আসেন, তখন রাম দেখতে পান সেখানে ১০৭ টি পদ্ম রয়েছে।সেই সময় তিনি তার নিজের নীল পদ্মের ন্যায় চোখ দুটির মধ্যে একটি উৎপাটিত করার জন্য উদ্যোগ নেন।এই সময় দেবী সেখানে উপস্থিত হন এবং তাকে এই কার্য থেকে বিরত করেন। দেবী জানান তাঁর পূজোয় তিনি সন্তুষ্ট। এরপর দেবী রামকে আশির্বাদ করেন রাবনের বিরুদ্ধে জয়লাভ করার।

দেবী দূর্গার পূজো শ্রী রামচন্দ্র করেছিলেন ষষ্ঠী তে,অষ্টমী নবমী তিথির মাঝে শ্রীরামচন্দ্রের অস্ত্রে দেবী স্বয়ং প্রবেশ করেন এবং দশমি তিথিতে সেই অস্ত্র দিয়েই রাবন বধ হয়।

যেহেতু ১০৮ টি পদ্ম দিয়ে পূজো করে শ্রীরামচন্দ্র দেবী দূর্গা কে সন্তুষ্ট করেছিলেন,সেই কারনে শাস্ত্র মতে দেবী দূর্গার পূজোয় ১০৮ টি পদ্ম আবশ্যিক বলেই জানানো হয়েছে।বলা হয়,এই প্রকারে দেবীর আরাধনা করলে সংসারে আশানুরূপ ফল পাওয়া যায়।

আরোও পড়ুন :