“তথ্যপ্রমাণ লোপাটের জন্য ওঁকে মেরে ফেলা হতে পারে”, অনুব্রত মণ্ডলকে নিয়ে চিন্তা দিলীপ ঘোষের


রাজ্য রাজনীতিতে চলছে ডামাডোল পরিস্থিতি। তৃণমূল নেতা অনুব্রত মন্ডল রাজ্যের অন্যতম দাপুটে অভিনেতা হিসেবেই পরিচিত। তাকে বারবার জনসমক্ষে এসে এমন কিছু কথা বলতে দেখা গেছে যা এখন জন প্রতিনিধির কাছ থেকে কখনোই কাম্য নয়, তবু তিনি নিজের মেজাজেই থাকতে ভালোবাসেন।

- Advertisement -

তবে এবার অনুব্রত মন্ডল পড়েছেন বিপাকে। এর আগেও একাধিকবার সিবিআই এর তলব এড়িয়ে গেছেন তিনি। নানা অজুহাত দেখিয়েছেন হাজিরা এড়াতে। কখনো হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন কখনো বা বলেছেন বীরভূম থেকে কলকাতায় এসে হাজিরা দেওয়া তার পক্ষে সম্ভব নয় কারণ, শরীর অসুস্থ। কিন্তু এভাবে কতদিন? আজ নয় কাল তো মুখোমুখি হতেই হবে।

এই অবস্থায় অনুব্রত মণ্ডলের জীবন নিয়ে কার্যত শঙ্কা প্রকাশ করলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি আজ বলেন, ‘হয় অনুব্রত সারাজীবন হাসপাতালে থাকতে হবে নইলে জেলে। অনুব্রত জেলে থাকলে ঠিক আছে। নিরাপদে থাকবেন। হাসপাতালে থাকলে বাঁচার সম্ভাবনা কম। অনুব্রত অনেক মামলায় অভিযুক্ত। একটা চাবি হারিয়ে ফেললেই হল। তাই তথ্যপ্রমাণ লোপাটের জন্য ওঁকে মেরে ফেলা হতে পারে।’

অনুব্রত মণ্ডলের তদন্তকারীদের সামনে গেলে অনেক সত্যি বেড়িয়ে আসবে বলে খবর। এই অবস্থায় রাজ্যের বনগাঁর দক্ষিণের বিধায়ক স্বপন মজুমদার দাবি করেছেন হাসপাতালে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নির্দেশেই মারা যাবেন অনুব্রত। এরপর তার নামে পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে।

কিছুদিন আগেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন প্রাক্তন বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার। তিনি দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের সূত্র ধরে বলেন, দিলীপ বাবুই যখন সব কিছু জানেন তখন সিবিআই এর উচিত তাকে ডেকে অনুব্রত মণ্ডলকে হত্যার পরিকল্পনা সম্পর্কে সবকিছু জেনে নেওয়া।

আরোও পড়ুন :