রাজ্যে বাড়ানো হলো বিধি নিষেধের সময়সীমা, মেলা ও বিয়ের অনুষ্ঠানে মিললো কিছু ছার

1817
- Advertisement -

- Advertisement -

গোটা দেশের মতো পশ্চিমবঙ্গেও ফের আরো একবার ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে শুরু করেছে করোনা ভাইরাসের নতুন প্রজাতি ওমিক্রন। প্রতি দিনই রাজ্যের বিভিন্ন জেলাতেই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমনের সংখ্যা। যার জেরে ইতিমধ্যেই বুস্টার ডোজ ও ১৫-১৮ বছর বয়সীদের জোর কদমে টিকাকরন ও শুরু করে দেওয়া হয়েছে। তৃতীয় ঢেউকে রুখতে ইতিমধ্যেই রাজ্যে জারি করা হয়েছে বিধি নিষেধ। এর পরেও কার্যত কলকাতার করোনা পরিস্থিতি রাজ্যের অন্যান্য স্থানের থেকে বেশীই ভয়ঙ্কর উঠতে শুরু করেছে। করোনার তৃতীয় ঢেউ সামাল দিতে চলতি মাসের ২ তারিখ থেকেই নবান্নর পক্ষ থেকে জারি করা হয়েছিল কিছু নির্দেশিকা। আজ ফের আরো একবার নয়া একটি নির্দেশিকা প্রকাশ করল নবান্ন।

করোনা পরিস্থিতি যখন আরো একবার আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করতে শুরু করেছে সেই সময়ই গঙ্গা সাগরের মেলা করতে দেওয়া নিয়ে উঠেছিল নানা প্রশ্ন। তবে প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও গঙ্গাসাগরে ভীড় জমানো আটকানো যায়নি। এরই মধ্যে রাজ্যে ঘোষিত পূর্বের করোনা বিধিনিষেধ কে বাড়িয়ে দিল নবান্ন। এর আগে মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী জানিয়েছিলেন ১৫ ই জানুয়ারি পর্যন্ত করোনা বিধিনিষেধ জারি থাকবে রাজ্যে। আজ সেই সময়সীমা বাড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি কিছু জিনিস ছারের কথাও ঘোষণা করা হলো।

জানানো হয়েছে রাজ্যে পূর্বের করোনা বিধিনিষেধ গুলিই জারি থাকবে আগামী ৩১ সে জানুয়ারি পর্যন্ত। তবে যেকোন মেলা তেই ছাড়পত্রের অনুমতি দেওয়া হলো। জানানো হয়েছে ফাঁকা স্থানে কঠোর করোনা বিধি নিষেধ মেনে করা যাবে মেলা। একই সাথে বিয়ে বাড়ি বা অনুষ্ঠান বাড়িতে উপস্থিত ব্যক্তির সংখ্যা বাড়িয়ে করা হয়েছে ২০০ জন। তবে যদি কোন অনুষ্ঠান বাড়ি বা লজে কোন অনুষ্ঠান করা হয় সেক্ষেত্রে ওই অনুষ্ঠান হলে মোট যেই আসনসংখ্য থাকবে সেই সংখ্যার অর্ধেক ব্যক্তি উপস্থিত থাকতে পারবেন সেখানে। এছাড়া স্কুল, কলেজ সহ পূর্বের বিধিনিষেধ এ আনা হয়নি কোন পরিবর্তন।

আরোও পড়ুন :