নেভেনি আশার আলো, চন্দ্রযানের সব আশা শেষ হয়ে যায় নি, জানুন আসল সত্য

3015
- Advertisement -
Image Source : Google

গতকাল রাত্রে ভারত সহ গোটা পৃথিবীর মানুষ তাকিয়েছিল ইসরোর ‘চন্দ্রযান-২’ এর দিকে। কিন্তু চাঁদে অবতরণের ২.১ কিমি আগে ল্যান্ডার বিক্রমেরসঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ফলে ভেঙে পড়ে গোটা দেশের মানুষ। তবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ইসরোর পাশে থাকার বার্তা দিয়ে বলেছেন ভবিষ্যতে আরো বড় প্রকল্পের দিকে এগোবে ভারত। প্রধানমন্ত্রী যাই বলুকনা কেন কিছুতেই সেই ক্ষত’র ওপর প্রলেপ পড়ছিল না। তবে সম্প্রতি ইসরোর এক আধিকারিকের বক্তব্যে কিছুটা আশার আলো পেতে পারে মানুষ।

- Advertisement -

তিনি বলেন ‘‘আমাদের চন্দ্র অভিযান ব্যর্থ হয়নি। বড়জোর ৫ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বাকি ৯৫ শতাংশ আমরা সফল।’’ ওই আধিকারিকের স্পষ্ট যুক্তি, বিক্রম ল্যান্ডার বিচ্ছিন্ন হলেও অরবিটার ক্ষতিগ্রস্থ হয়নি। তাই গোটা বছর চাঁদের ছবি পাঠাতে পারবে এই অরবিটারটি। ইসরোর ওই আধিকারিকই জানাচ্ছেন, ল্যান্ডারের ভাগ্যও জানা যেতে পারে ওই অরবিটারের সূত্রেই। সে-ই জানিয়ে দিতে পারে কোথায় রয়েছে বিক্রম। আর সে ছবি হাতে পেলেই বিজ্ঞানীরা জানতে পারবেন, ঠিক কী ঘটেছিল শুক্রবার মধ্যরাতে।”

“চাঁদকে আবর্তন করতে থাকা এই অরবিটারে রয়েছে ‘টেরেন ম্যাপিং ক্যামেরা ২ (টিএমসি ২)।’ এক এক পাকে চাঁদের পিঠের ২০ কিলোমিটার চওড়ার ফিতের মতো এলাকার ছবি তুলতে সক্ষম এই ক্যামেরা। এ ছাড়াও অরবিটারে রয়েছে ‘চন্দ্রযান টু লার্জ এরিয়া সফ‌্ট এক্স-রে স্পেকট্রোমিটার (ক্লাস)’, ‘সোলার এক্স-রে মনিটর (এক্সএসএম)’, ‘অরবিটার হাই রেজলিউশন ক্যামেরা (ওএইচআরসি)’, ‘ইমেজিং ইনফ্রা-রেড স্পেকট্রোমিটার (আইআইআরএস)’, ‘ডুয়াল ফ্রিকোয়েন্সি সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডার (ডিএফএসএআর)’, ‘অ্যাটমোস্ফিয়ারিক কম্পোজিশনাল এক্সপ্লোরার ২ (সিএইচএসিই ২)’ এবং ‘ডুয়াল ফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়ো সায়েন্স (ডিএফআরএস) নামে একটি পরীক্ষা যন্ত্র।”

আরোও পড়ুন :