‘পুষ্পা’ ছবিতে সাফল্যের পর এবার হলিউডের ছবিতে হাতের যাদু দেখাবে মালদার ছেলে সাগর


সিনেমাহলে হলিউড ছবির মারকাটারি ভিজ্যুয়াল এফেক্ট দেখতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু যদি জানতে পারেন এই কাজটি করছে মালদার ছোট্ট শহরের একটি ছেলে তাহলে কি বিস্মিত হবেন না? তবে এবার এটা সত্যিই হতে চলেছে। মালদার ইংলিশবাজারের সানিপার্কের বাসিন্দা সাগর পাসোয়ান। ছোট থেকেই তার সিনেমার এডিট এবং ক্যামেরার কাজের ওপর ঝোঁক। তবে এখন সেখানেই থেমে না থেকে এবার হলিউড ছবিতে ভিজ্যুয়াল এফেক্টের কাজ করবে সে।

- Advertisement -

অনলাইনে ইন্টারভিউ দিয়ে নিজের যোগ্যতায় এই কাজ পেয়েছে সে। এখন বাড়িতে বসেই ওয়ার্ক ফর্ম হোম চলছে সাগরের। এর আগে ‘পুষ্পা’ ছবিতেও নিজের হাতের কেরামতি দেখিয়েছে সাগর। দক্ষিনী এবং বলিউড ছবি মিলিয়ে বহু ছবিতেই কাজ করেছে সে। বাড়িতে বসে একটি ডেস্কটপকে সঙ্গী করে রাজ্যের ছোট শহরের যুবক সাগর ইতিমধ্যেই নিজের স্বপ্নপূরনের জন্য বেশ কয়েক ধাপ এগিয়ে গেছে।

গৌড় বিশ্ববিদ্যালয়ে জার্নালিজম নিয়ে পড়ার সময়ই বিভিন্ন ওয়েডিং ভিডিওতে ক্যামেরা রেকর্ডিং এর কাজ করত সাগর। এরপর একদিন ‘বাহুবলী’ দেখতে গিয়ে তার ভিজ্যুয়াল এফেক্টের ওপর কাজ করার ইচ্ছে জাগে মনে। কিন্তু চাইলেই তা তো আর সম্ভব নয় কারণ মালদার মত জায়গায় এই বিষয়গুলি নিয়ে সুযোগ সুবিধা অনেক কম।

এরপরেই অনলাইনে বলিউডের একজনের কাছে একটি কোর্স শিখতে শুরু করে সাগর এবং সেই সময় মালদা তে একটি অ্যানিমেশন শেখানোর ইন্সটিটিউট খুলে যায়। অনলাইন এবং অফলাইন দুইভাবেই কাজ শিখতে শুরু করে সাগর এবং ধীরে ধীরে যোগাযোগ হয় হায়দ্রাবাদ ও মুম্বাইয়ের বিভিন্ন স্টুডিওর সাথে।

গোটা দেশজুড়ে হাজার হাজার ছেলে এই কাজের সাথে যুক্ত। একটি ছবি তৈরীর সময় কয়েকটি শটের ভিজ্যুয়াল এফেক্ট তারা করে দেয় বাড়িতে বসেই। সাগরও সেই দলেই পড়েন। কিন্তু, মালদার মত জায়গা থেকে হলিউড ছবির শট এডিট করা চাড্ডিখানি কথা নয়। তবে এখানেই থামতে চাননা সাগর। তার স্বপ্ন নিজেই একটি গোটা ছবির ভিজ্যুয়াল এফেক্ট সুপারভাইজার হওয়ার। আগামী দিনে নিশ্চই সেই স্বপ্ন পূরণে সক্ষম হবে সাগর পাসোয়ান।

আরোও পড়ুন :