সতর্ক হোন! লক্ষ্মীর ভান্ডারের ফর্ম ফিলাপে এই ভুলটি করলে মিলবে না টাকা

22
- Advertisement -

লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প
রাজ্য জুড়ে বর্তমানে চলছে ‘দুয়ারে সরকার’ শিবিরের দ্বিতীয় পর্যায়ের কর্মসূচি। বাংলার প্রত্যেক জেলায় এই শিবির চলতি বছরের ১৬ ই আগস্ট থেকে শুরু হয়ে চলেছে গত ১৫ ই সেপ্টেম্বর অবধি ।এই শিবিরে সব থেকে জনপ্রিয় প্রকল্প ছিল ‘লক্ষ্মীর ভান্ডার’ প্রকল্প।সরকারি তরফে জানানো হয়েছে লক্ষ্মীর ভান্ডারের ফর্ম ফিলাপ করা যাবে এই কর্মসূচীর পরেও।

- Advertisement -

রাজ্য সরকারের এই নয়া প্রকল্পে সাধারন শ্রেণির মহিলাদের মাসে ৫০০ টাকা করে এবং তপশিলী জাতি ও উপজাতি সম্প্রদায়ভুক্ত মহিলাদের মাসে ১০০০ টাকা করে দেওয়া হবে।ভোটের আগে দেওয়া প্রতিশ্রুতি মতো তৃতীয় বার সরকারে আসার পরই এই প্রকল্পের ঘোষনা করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পরিসংখ্যান বলছে ইতিমধ্যেই কয়েক কোটি মহিলা এই প্রকল্পের সুবিধা গ্রহন করার জন্য নিজেদের প্রকল্পের আওতাভুক্ত করে ফেলেছেন।কিন্তু এই প্রকল্পে নাম নথিভুক্ত করার সময় কিছু কিছু জিনিস মাথায় রাখতে হবে,নাহলে ছোট্ট একটি ভুলের জন্যও টাকা আটকে যেতে পারে।

মূলত যেই ভুলটি এর মধ্যেই বার বার সামনে এসেছে তা হল অনেকেই নিজেদের ফর্মে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পের রেজিষ্ট্রেশন নম্বর টি দিচ্ছেন না কিংবা দিলেও তা ভুল দিচ্ছেন অনেকেই।এই প্রকল্পের আবেদন পত্রের সাথে অবশ্যই ব্যাঙ্কের পাসবই এর প্রথম পাতার জেরক্স,স্বাস্থ্যসাথী কার্ড,আধার কার্ড,ভোটার কার্ড,এক কপি রঙিন পাসপোর্ট ছবি, রেশন কার্ডের জেরক্স, তপশিলি জাতি অথবা উপজাতির গোষ্ঠীভুক্ত হলে তার শংসাপত্রের জেরক্স জমা দিতে হবে।ফর্ম ফিলাপের সময় অ্যাকাউন্ট নম্বর টি ভালো করে খেয়াল করে লিখবেন,কারন অ্যাকাউন্ট নম্বর ভুল হলে কোনো ভাবেই আপনার টাকা আসবে না।

অনেক মহিলার আবার ব্যাক্তিগত অ্যাকাউন্ট নেই জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট আছে।প্রথম দিকে শোনা যাচ্ছিল জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট এ আবেদন করা যাবে না,যদিও পরের দিকে জানা যায় জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট থাকলেও এই প্রকল্পের জন্য করা আবেদন পত্রে তা গ্রাহ্য করা হবে।

আরোও পড়ুন :